লাইফ ইজ আ পেইন, ম্যান!

অকল্যান্ডের এইদিকটা অনেক সুন্দর। ক্রিস্টোফার সেটা জানে। জানলেই তো আর মন ভালো হয় না। আজকেও সকালে বিবিসি ওয়ার্ল্ড নিউজে ওয়ার্ল্ডের ব্যাপারে পড়েছে সে। অ্যারাবরা নিজেরা মারামারি করে রক্তাক্ত করে ফেলেছে সব। গতকাল নাকি ইন্ডিয়ার পাশে একটা দেশে কতগুলো আইএস ছেলে হোস্টেজ করে অনেক মানুষ মেরে ফেলেছে। মুসলিম লোকগুলা এরকম করে কেনো বুঝেনা ক্রিস। আইএসের কথা শুনেছে সে। ওরা নাকি স্টেট দখল করবে। ইরাকে আর সিরিয়ায় এরা মারামারি করে প্রতিদিন। ওখানে মানুষ নাকি খেতে পায়না ঠিকমতন।

ক্রিসের এসব ভাবতে ভালো লাগেনা। তাসমান সাগরের পাড়ে সমুদ্রের ঢেউ এসে পাহাড়ের গায়ে আছড়ে পড়া দেখতে ভালো লাগছে তার। এই নেফার্তিতি রিসোর্টটা খুব অ্যাট্রাক্টিভ টুরিস্টদের জন্য। ফ্রেন্ডদের সাথে বেড়াতে এসেছে সে, লাইফের পেইন থেকে একটু বাঁচতে। ক্রিসের জীবনটাতে শান্তি নেই। অনেক আনহ্যাপি সে। ব্রিয়ানা গতকাল বলেছে “আয়্যাম ফিলিং দ্যাট ইউ ফিল হেভি টু মাই হার্ট। আই ওয়ানা বি ফ্রি”… ক্রিস ফিল করে পৃথিবীর আনলাকিদের মধ্যে একজন। গতকাল বন্ধুদের সাথে অকল্যান্ডে এসেছে বেড়াতে। নতুন পোর্শেটা বাবা চালাতে দিয়েছে।

ওর ইচ্ছা ছিলো ব্রিয়ানাকে নিয়ে বেড়াবে, তাই বাবাকে অনেকভাবে ইমোশোনাল করে এটা পেয়েছে সে। অথচ এখন মেয়েটা নাই, তাই বন্ধুদের নিয়ে আসতে হয়েছে। ওর কাছে লাইফটা মিনিংলেস লাগে। বিরক্তির চোটে পাশে সাজিয়ে রাখা একটা পাথরের টুকরা নিয়ে তাসমান সাগরে ছুঁড়ে দিলো ক্রিস্টোফার। “ওহ মাই গড, পাওয়ারফুল থ্রো” — এমন মন্তব্য শুনে তাকিয়ে দেখে একটা ছেলে, এশিয়ান। এই এলাকায় অনেকজনকে গভমেন্ট সিটিজেনশিপ দিয়েছে রিসেন্টলি।

এরা অনেকেই মুসলিম। ক্রিসের মনে হলো, এরাও মনে হয় টেররিস্ট। সিডনিতেও এরকম নতুন সিটিজেন একজন হোস্টেজ বানিয়েছিলো অনেককে। ক্রিসের মনে হয়, এরা এশিয়া থেকে এখানে এসে কী চায়? টেরি বলছিলো এশিয়ানদের কাছে নাকি নিউজিল্যান্ড স্বপ্নের মতন, ওরা খুব চায় ইমিগ্রেট করতে। আশ্চর্য তো ওরা! হয়ত খুব গরীব ওরা। টেরিও জানে আসলে ওর কিচ্ছু ভালো লাগেনা।

ইউনিভার্সিটির ডর্মে ফিরে গেলে আবার অ্যাসাইনমেন্ট শুরু হবে। কেন এসব পড়ছে সে? গ্র্যাজুয়েশন হলে স্টেট গভমেন্ট তো ওকে এনএলএইচে জব দিবে। এবার ফ্রেজারটাউনে জিওলজিতে গ্রাজুয়েট কেউ নেই এত বড় কোম্পানিতে জব পাওয়ার মতন। ওদের অনেক ফ্যাসিলিটির কথা শুনেছে। তবে ওখানে আলাদা বাংলোতে থাকতে হয় অনেক স্মার্ট পেমেন্ট হলেও। বিরক্তিকর একটা ব্যাপার হবে! এদিকে ব্রিয়ানার মতন মেয়েটার সাথেও রিলেশন রাখতে পারলো না বেশিদিন সে, কিছুই তো পারেনা। মরে যেতে ইচ্ছা করে ক্রিসের। তাসমান সাগরের দিকে তাকিয়ে দীর্ঘশ্বাস নেয় সে… মুখ দিয়ে আনমনে বলে ওঠে– “শিট! লাইফ ইজ আ পেইন, ম্যান!”

About mahmud faisal

Yet another ephemeral human being...
This entry was posted in গল্প. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s