ইনসোমনিয়াক রাতটা জ্বালাচ্ছিলো ভীষণ

ইনসোমনিয়াক রাতটা জ্বালাচ্ছিলো ভীষণ। বুকের ভেতরটায় নোনা জলের একেকটা ক্যানিয়ন। নেখলিউদভ যতটা জ্বালা ধরানো হৃদয়ে ছুটে চলেছিলো এই শহর থেকে ওই শহর, তার চেয়ে অস্থিরতা হয়ত কম নয়। আংরাভাসা নদীর জলে কিশোর অনিমেষ যতটা ভিজেছিলো, অমন করে কি ভিজেছে মহানন্দায় কেউ? রাতগুলোর একেকটার পারমিয়াবেলিটি বড্ড কম বলে মনে হয়, অস্থিরতার জেটপ্যাক হয়ে ছুটে বেড়ায় অন্তরীক্ষে। জা ভালজাঁকে কি মনে হয় দেখা গেলো এইবেলা? ঐতো সেগুনবাগিচার দুদক অফিসের সামনে? পাশেরজন মনে হয় যেন ছিলো পাভেল কর্চাগিন। না না… তা কী করে হয়, ওরা দু’জন তো দুই জগতের। কিন্তু, সেদিন সকালে রমনা পার্কের ভেতরে বয়ষ্ক শক্তপোক্ত প্রৌঢ়কে দেখে ভ্লাদিমির লেনিনের মতন মনে হলো কেন? অমন বয়ষ্ক মানুষটা কীসের টানে শরীরকে প্রস্তুত করছেন ফৌজি সেনাদের মতন? নতুন কোনো বিপ্লবের প্রস্তুতি চলছে নাকি এই মত্ত কলোনিয়াল পুঁজিবাদের দেশে? নিলভনা ভ্লাসোভা হঠাৎ যদি কড়াইল বস্তিতে জন্ম নিয়ে চলে আসে, কী হবে তখন? পাভেল কর্চাগিনের সাথে যদি মিশে যায় লক্ষ লক্ষ হতভাগা নিম্নবিত্ত হতশ্রী পুরুষ-মহিলা? চিন্তা করেই কেমন অস্থির হয়ে যায় ইনসোমনিয়ার রাত। প্যাঁচা ডাকছে কোথাও। অশরীরি কিছুর কথা ভেবে গুলিয়ে ওঠে বুক। যা দেখা যায়, তার চেয়ে বেশি কিছু দেখা যায় না। এটা তো বুঝেই সে, তবু…

২১/০৬/১৬

About mahmud faisal

Yet another ephemeral human being...
This entry was posted in পরাবাস্তব. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s