ডুবতে রাজি আছি আমি


রবিদার সাথে আমার মিতালি আমার কৈশোরের শুরু থেকেই। সে এক অদ্ভূত সময় ছিলো! কেন যেন যখন থেকেই অনুভূতিদের সাথে আমার পরিচয়, রবিদা আমাকে পুরো সম্মোহিত করে নিয়েছিলেন। শব্দগুলোর ঝংকারে আমার বিবশ কাটতো ক্যাডেট জীবনের সেই বৃহস্পতিবারগুলো। সেই সন্ধ্যাবেলা মেহগনি গাছগুলোর নিচে দাঁড়িয়ে সারি সারি আলো-আঁধারির গাছ, রাতের আকাশের ওই তারাগুলোর সাথে আমার কাটানোর সময়গুলোতে আল্লাহ থাকতেন আমার সাথে, আর থাকতেন রবিদা। আর কেউ না! কখনো সেই বাতাসের ঝাপটা পেলেই রবিদা কানে আমাকে ফিসফিসিয়ে বলতেন, “কোনদিন কর্মহীন পূর্ণঅবকাশে, বসন্ত বাতাসে/ অতীতের তীর হতে যে রাত্রিতে বহিবে দীর্ঘশ্বাস, ঝরা বকুলের কান্না ব্যথিবে আকাশ”। আমার সেই বাতাসের ঝাপটা বসন্ত বাতাসের কথা মনে করিয়ে দিতো। ঝরা বকুল না হলেও তারিক হাউসের সাত নাম্বার রুমের সামনের কোণায় বাগানটায় ঝরা হাস্নাহেনার সুবাসে বুকটা মোচড় দিয়ে উঠতো।


বৃষ্টি যখন ঝমঝমিয়ে পড়তো, বিকেলে গেমস ক্যানসেল হয়ে গেলে আমি যখন আসরের নামায শেষে খালিদ হাউসের নিচতলার সাত নাম্বার রুমটা পেরুতে গিয়ে কাঠগোলাপের গন্ধে বিবশ অনুভূতিদের নিয়ে এগুতে যেতাম, রবিদা মনে করিয়ে দিতেন সেই কথা– “হেরো আকাশের দূর কোণে কোনে/ বিজুলি চমকি উঠে খনে খনে/ …/নবকদম্ব মদীর গন্ধে আকুল করে”। কদম না, কাঠগোলাপের গন্ধ আমাকে আকুল করতো। সাক্ষী রয়ে গেছে আমার ডায়েরিগুলো। সেই আকুলতাকে ভরে দিতাম পাতায় পাতায়। আজকের মতন করে লিখতে পারতাম না তখন। তবু সেই আকুতিগুলো আমি পরেও অনুভব করতে পারতাম।


রবিদা আজ অনেকদিন পর আমার কাছে ফিরে এসেছেন। আজ হঠাৎ বিষাদগ্রস্ত হয়েছিলাম। কেউ ক্রমাগত ভুল বুঝে দোষারোপ করতে থাকলে নিজেকে বড় অবাঞ্ছিত মনে হতে থাকে। তখন মনে হলো ডুব দেই। খোলা হাওয়া পালে লাগিয়ে ডুব দিবো, ডুবতে বুঝি আমি সত্যিই রাজি আছি। রবিদা আমাকে উদাস করে দেন। রবিদা আজকাল বুঝেন না, আমি ডুবলে কী করে হবে! আমি ডুবে গেলে আমার সব যে হারিয়ে যাবে! অর্থহীন হয়ে যাবে এ জীবন। অথচ বড্ড ইচ্ছে হয় ডুবে যাই, তুফান পেলে বেঁচে যাই। শাহানা বাজপেয়ি আমার অনুভূতিগুলোকে ছিঁড়ে ছিঁড়ে টুকরো করে ডুবিয়ে দিচ্ছে, আর আমি ডুবতে রাজি নই তবু ডুব দিচ্ছি। অদ্ভূত এই অনুভূতি। সজ্ঞান থাকার চেষ্টা একদিকে অন্যদিকে হারানোর ইচ্ছা।

কখনো কখনো খুব ডুবতে ইচ্ছে করে। আমি হয়ত ডুবতে রাজি আছি। হয়ত নেই। এটা দোটানা কী? জানিনা। জানতে চাইও না। আমি যা-ই ভাবিনা কেন। রবিদা তো আর আমার জীবনের বাস্তবতা নিয়ে ভাবেননি। কানের কাছে এসে বলছেন “দাও ছেড়ে দাও, ওগো আমি তুফান পেলে বাঁচি/ আমি ডুবতে রাজি আছি, আমি ডুবতে রাজি আছি”। আমি যে সত্যিই চিৎকার করে ছেড়ে দিতে বলতে চাইছি, রবিদা কেমন করে বুঝে যান সেটা?

আর কথা বাড়াবো না। আমি সুরে ডুব দিবো একটু। এটাকেই হয়ত অবগাহন করা বলে। ডুবে ভেসে যাবোনা, মরে যাবো না। স্রেফ একটু ডুব দিয়েই উঠে পড়বো। এই ক্লেদ, এই যন্ত্রণার কালো রেখাগুলো আমি মাঝির নৌকায় করে গিয়ে পানিতে ঘসে ঘসে তুলে ফেলবো। আমি ঝড়ের ভ্রূকুটিতে ডরবো না। পঁচিশ বছরের জীবনে ঝড় কম এলো গো রবিদা? তুমিই অমন করে আমায় কম উদাস করলে? তোমায় আমি ছাড়বো না রবিদা। তুমি সুযোগ পেলেই অমন করে কেন ঠেলে দাও আমায় জলে? আমি যে ডুবে ডুবে উঠি হাঁচড়ে পাঁচড়ে… আজ অবশ্য ইচ্ছে করেই খুঁজে আনলাম তোমাকে। আজ আমি ডুব দিবো, আজ আমি ডুবতে রাজি আছি, আমি ডুবতে রাজি আছি…

ইউটিউবে গানটাঃ এই গানটা রিমুভ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ, জয়া আহসান এর অভিনয়ে শাহানা বাজপেয়ীর গানটা ছিলো। ইউটিউবে আরেকটা সোর্স খুজে পেয়েছি শাহানা বাজপেয়ীর গলায়।

গানঃ তোমার খোলা হাওয়া
গানের কন্ঠঃ শাহানা বাজপেয়ি
কথাঃ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

::: তোমার খোলা হাওয়া :::

তোমার খোলা হাওয়া, লাগিয়ে পালে॥
তোমার খোলা হাওয়া
টুকরো করে কাছি,
আমি ডুবতে রাজি আছি, আমি ডুবতে রাজি আছি।
তোমার খোলা হাওয়া, লাগিয়ে পালে।
তোমার খোলা হাওয়া

সকাল আমার গেল মিছে,
বিকেল যে যায় তারই পিছে গো॥
রেখো না আর, বেঁধো না আর কূলের কাছাকাছি
আমি ডুবতে রাজি আছি, আমি ডুবতে রাজি আছি
তোমার খোলা হাওয়া, লাগিয়ে পালে।
তোমার খোলা হাওয়া

মাঝির লাগি আছি জাগি সকল রাত্রিবেলা
ঢেউগুলো যে আমার নিয়ে করে কেবল খেলা ॥
ঝড়কে আমি করব মিতে
ডরব না তার ভ্রুকুটিতে॥
দাও ছেড়ে দাও, ওগো আমি তুফান পেলে বাঁচি
আমি ডুবতে রাজি আছি, আমি ডুবতে রাজি আছি
তোমার খোলা হাওয়া, লাগিয়ে পালে।
তোমার খোলা হাওয়া…

  • ছবি কৃতজ্ঞতাঃ জুবায়ের বিন হায়দার নাভিল, বন্ধুবরেষু

About mahmud faisal

Yet another ephemeral human being...
This entry was posted in ব্লগর ব্লগর. Bookmark the permalink.

ডুবতে রাজি আছি আমি-এ 7টি মন্তব্য হয়েছে

  1. tashfiqua বলেছেন:

    gan ta amaro khub valo lage.

  2. Fatema shahrin বলেছেন:

    সুন্দর অনুভূতি

  3. দারাশিকো বলেছেন:

    গানটা ভাল্লাগে, তাই আয়া পড়লাম🙂

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s