কবিতা এমন

আমি আসলে ঠিকমত জানিনা সবাই কেন কবিতা পড়ে। এখনও আমি জানিনা আমি কেন পড়তাম। তবে আমি জানি আমি কেন এখনো মাঝে মাঝে পড়ি। কিছু শব্দ, কিছু অনুভূতির প্রগাঢ়তা আমাকে ভিন্ন একটা স্বাদ দেয়। যেটা আমি গদ্যে পাইনা, যেটা আমাদের এই যান্ত্রিক জীবনের কোলাহলে পাবার প্রশ্নই উঠেনা।

পাঠ্যপুস্তকের বাইরে কেবলমাত্র কবিতা পড়া হয়েছিলো সেই কৈশোরে। সঞ্চয়িতা মাথার পাশে রেখে কেটেছে বছরের পর বছর। মন খারাপ হলে, আনমনা হলে হাতে তুলে পড়ে নিতাম কয়টা কবিতা। শব্দে ভেসে যেতাম। আরেকটু বড় হয়ে জীবনানন্দে ডুবে গেলাম। সেই ডুব গভীর হওয়ার আগেই জীবনের ব্যাপক পরিবর্তনে অনেকটাই হারিয়ে যাচ্ছিলাম কবিতার জগত থেকে। ভার্সিটি ক্যাম্পাসে এসে অনেকের সাথেই পরিচয় হলো — শহীদ কাদরী, হেলাল হাফিজ, রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ। হলের লাইব্রেরিতে পাওয়া আল মাহমুদ কবিতাবলীটা ইস্যু করার পর প্রায় বছরের পুরোভাগেই আমার কাছে ছিলো। খুব কমই পড়া হয়েছিলো। হাতে গোণা ৫-৭টি কবিতা আমি আমার ডায়েরিতে তুলে রেখেছি।

আজ মনটাতে কেমন যেন অস্থির লাগছিলো। কারণ খুঁজে পাচ্ছিলাম না। তাই বরাবরের মতন একটু কুরআন পড়লাম, কুরআন শুনলাম। পবিত্র আর সুন্দর শব্দের স্পর্শে অস্থিরতা কমে এলো। তারপর হঠাৎই মনে হলো — একটু কবিতা পড়িনা কেন! সেই স্নিগ্ধ শব্দভরা কবিতা! যেখানে আমাদের জীবনের মূহুর্তগুলো মূর্ত হয়। যেখানে শব্দেরা হৃদয়ের খসে যাওয়া পলেস্তরার জায়গায় নতুন পরত লাগিয়ে দেয়… খুঁজে বের করলাম ভালোলাগা এমনই একটি কবিতা।


ছবি কৃতজ্ঞতাঃ জুবায়ের বিন হায়দার নাভিল, বন্ধুবরেষু


কবিতা এমন — আল মাহমুদ

কবিতা তো কৈশোরের স্মৃতি। সে তো ভেসে ওঠা ম্লান
আমার মায়ের মুখ; নিম ডালে বসে থাকা হলুদ পাখিটি
পাতার আগুন ঘিরে রাতজাগা ভাই-বোন
আব্বার ফিরে আসা, সাইকেলের ঘন্টাধ্বনি–রাবেয়া রাবেয়া–
আমার মায়ের নামে খুলে যাওয়া দক্ষিণের ভেজানো কপাট!

কবিতা তো ফিরে যাওয়া পার হয়ে হাঁটুজল নদী
কুয়াশায়-ঢাকা-পথ, ভোরের আজান কিম্বা নাড়ার দহন
পিঠার পেটের ভাগে ফুলে ওঠা তিলের সৌরভ
মাছের আঁশটে গন্ধ, উঠানে ছড়ানো জাল আর
বাঁশঝাড়ে ঘাসে ঢাকা দাদার কবর।

কবিতা তো ছেচল্লিশে বেড়ে ওঠা অসুখী কিশোর
ইস্কুল পালানো সভা, স্বাধীনতা, মিছিল, নিশান
চতুর্দিকে হতবাক দাঙ্গার আগুনে
নিঃস্ব হয়ে ফিরে আসা অগ্রজের কাতর বর্ণনা।

কবিতা চরের পাখি, কুড়ানো হাঁসের ডিম, গন্ধভরা ঘাস
ম্লান মুখ বউটির দড়ি ছেঁড়া হারানো বাছুর
গোপন চিঠির প্যাডে নীল খামে সাজানো অক্ষর
কবিতা তো মক্তবের মেয়ে চুলখোলা আয়েশা আক্তার।

কাব্যগ্রন্থঃ সোনালী কাবিন

…… ::: আরো কয়েকটি কবিতা ::: ……

About mahmud faisal

Yet another ephemeral human being...
This entry was posted in কবিতা, সংকলন. Bookmark the permalink.

কবিতা এমন-এ 6টি মন্তব্য হয়েছে

  1. shimu বলেছেন:

    এই কবিতাটা আমার খুব পছন্দের কবিতাগুলোর একটি। আমি মূলতই গদ্য কবিতার ভক্ত আর আল মাহমুদের কবিতার জগতে আমার সরব পদচারনা। একদম ভিন্ন একটা স্টাইল এর লেখনি খুঁজে পেয়েছি উনার কবিতার মধ্যে, যেটা আর কারো লেখাতেই পাইনা। ”মায়াবী পর্দা দুলে ওঠো” কবিতাটি অসাধারন। না পড়লে পড়তে পারেন।

  2. maq বলেছেন:

    ১।
    ওরে বাবা! কবিতা জিনসটাকে খুব ভয় পাই, কিছুই বুঝিনা। এই জন্য কবিতাবিষয়ক জিনিপত্র নিয়ে লিখলে তোমার এইখানে আমি কোন আওয়াজ করিনা।😛

    ২।
    তবে ছড়া জিনিসটা খুব পছন্দের – একটা সুর থাকে, ছন্দ থাকে – সবচেয়ে বড় কথা ছড়াগুলোর মর্মকথা কিভাবে কিভাবে যেন বুঝে ফেলি। আর সুকুমার, সত্যেন্দ্রনাথের উপর তো কথাই নাই।

    • mahmud faisal বলেছেন:

      তানিম ভাইয়া, কবিতা যে আমিও খুব বেশি বুঝি তা না। কিন্তু কিছু কবিতায় কিছু শব্দ পাশাপাশি পেলে পড়তে এত ভালো লাগে যে শেয়ার না করে পারিনা।🙂

      সত্যেন্দ্রনাথ আর সুকুমাররা ছিলেন বাংলা ভাষার একেকটা সম্পদ🙂

  3. তিথীডোর বলেছেন:

    আবুল হাসানের নাম বলা হয় নি কিন্তু। ‘সে এক পাথর আছে, কেবলি লাবণ্য ধরে।’

    জীবনানন্দ, রফিক আজাদ, শঙ্খ ঘোষ, বিনয় মজুমদার, মহাদেব সাহা, শক্তি চট্টোপাধ্রায়, সুবোধ সরকার, নরেশ গুহ, অমিয় চক্রবর্তী, তারাপদ রায়, নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, নির্মলেন্দু গুণ, আহসান হাবীব, রুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, পূর্ণেন্দু পত্রী– প্রিয় কবি অনেক, অনেক।
    শুধু রবীন্রনাথকে পড়ার জন্য…..শুধু কবিতা পড়ার জন্য আরেকবার জন্মাতে ইচ্ছে করে।

    ভাল লাগল লেখাটা।🙂

    • mahmud faisal বলেছেন:

      এত সুন্দর কমেন্টটার উত্তর দেয়ার সাহস হয়নি অনেকদিন🙂
      আজ বসেই পড়লাম শেষমেষ। কবিতার প্রতি মোহময় সময়টায় আবুল হাসানের সাথে পরিচয় হয়নি আমার। তাই উহ্য রয়ে গেছে নামটা। অন্য সবাইকে অল্প অল্প পড়েছি। নরেশ গুহ পড়িনি অবশ্য।
      রবিদা আমার সম্পদ। আমার অস্তিত্বের মাঝে তার প্রভাব অনেক… আমি রবিদার মোহমুগ্ধ🙂

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s