অনিয়ত কথন


আচ্ছা, অভিমানে গলা বন্ধ হয়ে আসার অনুভূতিটা কি সবার হয়? সবাইই কি অভিমান করে? যাকে ভালোবাসিনা, তার প্রতি কি অভিমান করা যায়? অভিমান হলে অমন কষ্ট কষ্ট অনুভূতি হয়ে কেন বুকের ভিতরটায়? কেন যার প্রতি অভিমান তাকে জানাতে অনেক ইচ্ছে করে? — এরকম রাশি রাশি প্রশ্ন মাঝে মাঝেই মনের দরজায় ভীড় করে। আমি ওদের দরজায় দাঁড় করিয়ে রাখি, কথা বলি হালকা-পাতলা, কিন্তু ঢুকতে দিই না। ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র সীমানার জীবনের অল্পসল্প সময়টুকু ওদের পাত্তা দিলে ওরা এই জীবনটার রফাদফা করে ছাড়বে।

তাই আমি আবার ফিরে যাই নীলাভ আকাশ আর মৃদু কল্লোলের মাঝে ভেসে আসা স্রোতের কাছে। নিস্তরঙ্গ পথের অবিচ্ছিন্ন দুঃখগুলো সহসাই বাঙময় হয়ে উঠতে চায়। ওদের ঋতুর বৈচিত্র্যের সোপানে পদধূলিত করে আছড়ে পড়ে সূদূরের ঐকতান। বিহবল সুরের মূর্ছনায় অনিয়ত শব্দচয়ন করে আমার আর্তিগুলো।

স্ফূরিত হয়ে যাওয়া শব্দমিছিলে আজ শবযাত্রা হয়। শবযাত্রায় যোগ দেয় ভেসে ওঠা ভালোবাসারা। অবিদগ্ধ স্বপ্নেরা ঘর বাঁধার কঠিন মুগ্ধতায় বিহবল হয়। আজন্ম প্রত্যাশারা খুঁজে পায় নিজেদের দীন-হীন করে…

তবুও আর ছেড়ে যাওয়া স্মৃতির আরক্তিম আভা আর মৃন্ময় হয়না। মৃত স্বপ্নের জলকুমারীরা ছেড়ে চলে যায় এই গুহা… অর্পিত হয় এই জনকোলাহলের রিক্ততা। আপন সীমাবদ্ধতায় উচ্ছন্নে যায় সকল সৌন্দর্যবোধ আর পবিত্র স্বপ্নেরা…

সময়ের ঘোরে অনিয়ত কথনের দুর্বিপাকে ঘূর্ণায়মান হৃদানুভূতির প্রবাহ। ঈপ্সিত জলজ আভায় সিক্ত হয় প্রাণোচ্ছ্বল অভিযাত্রা… আমার পথের অশ্রুরা কেন ফিরে ফিরে পড়ে অসীম নক্ষত্রলোকে? কেন সেই সিন্ধুর হাল চঞ্চলায়তনের উপাখ্যান আমার ক্ষুদ্রতা আর দৈন্যতা?

আচ্ছা, তুমি নীল নবঘনে রক্তাভ জবার আঁচলের ফুসেঁ ওঠা দেখেছো? অসহায়ের প্রবল অশ্রুভারাক্রান্ত মনের হেঁটে চলা দেখেছো? যেদিন শত অবিচ্ছিন্নতা আমায় আরো দূরে নিয়ে যায়… ক্রুদ্ধ হতচ্ছাড়া সেই সত্ত্বা আমায় হতবুদ্ধি করে দেয়। আঁধারের নীলাচলে বেড়ে ওঠে এই সবুজ মন।

ক্রমে এই নিরর্থক ক্রন্দন স্ফীত হয়। নতজানু হয়ে কেঁদে উঠি এক অনন্ত সত্বার ক্ষমতার কাছে। তুমি বিনে আর কেউ কি আপন? আর যবে যেথা ছুটে যাই কেবলি ভ্রান্তি আর অস্থিতি। আমায় স্থিতি দেবেনা তুমি প্রভু? আর কত সকালে হতবুদ্ধি নিরর্থক ঘুমভাঙ্গা শব্দকল্লোল আমায় ভুল বুঝাবে?

অপেক্ষা ক্রমাগত বেড়ে চলে… অতঃপর অরিত্রিয় কোলাহলে রুদ্ধ অনুভূতি। পড়ে থাকে কেবল নীলাভ জলের সিঞ্চনময় শুভ্রতা, এর নামই কি তবে অশ্রু, হৃদয়ের নিনাদ?


ছবি কৃতজ্ঞতাঃ জুবায়ের বিন হায়দার নাভিল, বন্ধুবরেষু

About mahmud faisal

Yet another ephemeral human being...
This entry was posted in ব্লগর ব্লগর. Bookmark the permalink.

অনিয়ত কথন-এ 5টি মন্তব্য হয়েছে

  1. lightwindmyths বলেছেন:

    এই জনকোলাহলের রিক্ততা………
    এরই মাঝে আমাদের জীবন তরীর হাল টানা
    এরই মাঝে শুন্যতায় ভরে যাওয়া চারপাশ
    এরই মাঝে মেঘে ঢেকে যাওয়া নীল আকাশ
    এরই মাঝে শত স্বপ্নের আনাগোনা।

    লেখাটা পড়ে মন খারাপ ভাবটা বেড়ে গেল…
    মন ভাল হোক আকাশের,
    বাতাসের,
    মন ভাল হোক আমার।
    🙂

  2. sadiaafrinshorna বলেছেন:

    ভালো লেগেছে…🙂

  3. mahmud faisal বলেছেন:

    অনেকদিন পর কমেন্টগুলোর উত্তর দিতে এলাম। কী আর বলবো, সবাইকে ধন্যবাদ কষ্ট করে এলোমেলো লেখাগুলো পড়ার জন্য🙂

  4. xissan বলেছেন:

    খুবই ভালো লাগলো লেখাটা।
    সময় পেলে আমারটা পড়বেন http://xissan.blogspot.com

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s