এই মেঘলা দিনে একলা ঘরে থাকে না তো মন


শিরোনামটা এরকম হবার মানে কিন্তু এই না যে বৃষ্টিভেজা দিন বরাবরের মতন আজও আমার মনকে ভিজে আমায় উদাস করে দিয়েছে! তবে লিখতে বসার একমাত্র কারণ হলো কিঞ্চিৎ স্মৃতিচারণ। আজ একটা জিনিস আরেকবার দারুণভাবে উপলব্ধি করলাম — বাঙ্গালির মনের সাথে আসলে এই বর্ষার যোগসূত্র খুবই প্রগাঢ়। সারাদিন ঝিরিঝিরি বা টুপটাপ বা ঝমঝম যেমন বৃষ্টিই হোক না কেন– সবাই কমবেশী উদাস হয়েই যায়। অফিসে-ক্লাসে-বাইরে যেতে ইচ্ছে করেনা, তার উপর একটু শীত শীত ভাব থাকায় কাথা মুড়ি দিয়ে শুয়ে থাকতেই ইচ্ছে করে কেবল।

এই আমিই আজ একদম মনটাকে প্রশ্রয় দেইনি। সারাদিন কেবলি বিভিন্ন কাজ আর ছোটখাটো পড়াশোনা নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। আর সময়ে সময়ে চোখ রাখতে গিয়ে ফেসবুক নামক জায়গাটার প্রায় অর্ধশত মানুষের বৃষ্টি নিয়ে স্ট্যাটাস দেখে তার রেশ এসে লেগেছে আমাকে শেষমেষ। হয়তবা ছোটভাই MSU শিহাবের লেখা ‘মেঘলা দিনের বিষণ্ণতা’ টাইপের কথা না দেখলে এটাও লিখতে বসতাম না! কিন্তু আজ আমার কেবলি একটা স্মৃতি মনে পড়ে গেলো, হঠাৎই– অনেকটাই গভীর করে।

স্মৃতিচারণটা হলো– কলেজে তখন ক্লাস সেভেনে পড়ি। মোস্তফা অডিটরিয়ামে কোন একটা অনুষ্ঠান যেন… ১৯৯৯ সালের কোন এক সন্ধ্যায় সবাই গিয়ে বসে ছিলাম আমাদের জন্য নির্ধারিত চেয়ারগুলোতে– একদম সামনের সারিতে। তখন কলেজ কালচারাল প্রিফেক্ট ওমর ভাই স্টেজে। তিনি যখন “এই মেঘলা দিনে একলা ঘরে থাকে না তো মন” গানটা ধরলেন, শুনতে অদ্ভূত আর কাকতালীয় হলেও সত্য কথা হলো– তখন বাইরে তুমুল বৃষ্টি। আর তাই হয়ত স্মৃতিতে সন্ধ্যাটা আর গানটা এতটাই গেঁথে আছে। একটা মজার ব্যাপার হলো– এই গানটা আজকের আগে আমি ওমর ভাইয়ের কণ্ঠে ছাড়া আর কারও কন্ঠে শুনিনি কখনও। গত ১১ বছর ধরে যখনই গানটা শুনেছি, ওমর ভাইয়ের কথা মনে পড়েছে। সেদিনের রাতে তার সুমধুর কন্ঠে আমাদের গোটা অডিটরিয়াম ভর্তি ক্যাডেটদের বৃষ্টিমধুর পরিবেশে মন্ত্রমুগ্ধ করে দিয়েছিলেন তিনি। সেইদিনের ১৩ বছর বয়েসী এই পিচ্চি ছেলেটা আজ স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে আবিষ্কার করলাম সময় কতনা দ্রুত চলে যায়!!

গানটির মূল গায়ক হেমন্ত মুখোপাধ্যায়। গানের কথাটা নিচে দিয়ে দিলাম। গানটা আসলেই অনেক উদাস করে দেয়ার মতন। তবে আগ্রহ করে উদাস হতে চাওয়া খুব খারাপ, তাতে হৃদয়ে শান্তি হবার চাইতে অশান্তি হয় বেশি। দুর্বলচিত্তের মানুষেরা উদাস হয়ে অনেক বেফাঁস কাজ করে বসেন। সুতরাং, একটু সাবধান থাকা উচিত এই ব্যাপারে আরকি!😛

এই মেঘলা দিনে একলা
ঘরে থাকে না তো মন
কাছে যাব কবে পাব
ওগো তোমার নিমন্ত্রণ।।

যুঁথি বনে ওই হাওয়া
করে শুধু আসা-যাওয়া
হায় হায়রে দিন যায়রে
ভরে আঁধারে ভুবন।।

শুধু ঝড়ে ঝড়ো ঝড়ো
আজ বারি সারাদিন
আজ যেন মেঘে মেঘে
হলো মন যে উদাসীন।

আজ আমি ক্ষণে ক্ষণে
কী যে ভাবি আনমনে
তুমি আসবে ওগো হাসবে
কবে হবে সে মিলন।।

[হেমন্তের গলায় গানটা]

photo courtesy: google

About mahmud faisal

Yet another ephemeral human being...
This entry was posted in গান, স্মৃতিকথা. Bookmark the permalink.

এই মেঘলা দিনে একলা ঘরে থাকে না তো মন-এ 3টি মন্তব্য হয়েছে

  1. শুধু ঝড়ে ঝড়ো ঝড়ো
    আজ বারি সারাদিন
    আজ যেন মেঘে মেঘে
    হলো মন যে উদাসীন।

    এই লাইনগুলো আমার খুবই পছন্দের। এই গান আমি প্রথম শুনেছিলাম আমার মা’র কাছে। না হলেও বিশ বছর আগের কথা। আমার মা প্রায়শ এই গানটা গায়। সেই থেকেই প্রথমে ক্যাসেট আর এখন কম্পিউটারে। ছবিটা অনেক সুন্দর।

  2. তাপস বলেছেন:

    বরষা মিলনের ঋতু, তাই বিরহ এবং তজ্জনিত মনখারাপ। তাই বোধহয় বর্ষা নিয়ে সুন্দর সুন্দর কবিতা গান এত লেখা হয়েছে। তোমার লেখটাও সুন্দর।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s