হাজার কবিতা বেকার সবই তা


নচিকেতার গান ভালো লাগে না– এমন কোন বন্ধু আমার জীবনে দেখি নাই। ছোট বড় ভাইবোন যারা আছে, তাদেরকেও দেখেছি এই লোকটির গানকে তুমুল পছন্দ করতে। অন্ততঃ অপছন্দ করার লোক দেখিনি। আমার জ্ঞান থেকে যতটুকু বুঝি, এর পছন্দের কারণ হচ্ছে সুন্দর আর জীবনধর্মী লিরিক তথা গানের কথাগুলো।

শিরোনামেই বুঝে যাবার কথা সবার যে এটা নচিকেতার ‘নীলাঞ্জনা’ গানের অংশ। আমার অলটাইম ভালোলাগার তালিকা করলে তাতে এইটা থাকার কথা। ক্যাডেট কলেজে কাটানো টিনএজের একটা সুন্দর সময়ে এইটা আমাদের ব্যাচমেটদের বেশ একটা প্রিয় গান ছিলো। গানটার সাথে সাথেই আমার ৩৩ তম ব্যাচের আশেক ভাইয়ের কথা মনে পড়ে যায়। ২০০২ সালের রি-ইউনিয়ন উপলক্ষে কলেজের প্রেজেন্ট ক্যাডেটদের পক্ষ থেকে আয়োজিত অনুষ্ঠানে আশেক ভাই এই গানটি গেয়েছিলেন। আমার স্মৃতি সেই সন্ধ্যাটিকে ভুলেনা! ইশতিয়াক ভাইয়ের ‘তুমি বিস্মৃত লগ্ন মাধুরীর জলে ভেজা কবিতায়’ আর দেওয়ান ভাইয়ের কন্ঠে ‘ভুলে যাও আজ যত ব্যাথা, বলে দাও তুমি না বলা কথা’ গানটা বিনা কারণেই মনের ভেতরে গেঁথেই আছে!

আশেক ভাইকে আমার আরেকটু বেশি মনে পড়ে কারণ আমাদের ক্লাস নাইনের প্রেজেন্টেশন নাইটে আমি Richard Marx এর Right Here Waiting গানটা গেয়েছিলাম। আশেক ভাই উৎসাহ দিয়েছিলেন আর কীবোর্ডে পিয়ানোর কাজটি করেছিলেন। অনুষ্ঠানের পর প্রিন্সিপাল ফায়জুল হাসান স্যার ৩৬ তম ব্যাচের সেই ‘উপহার রজনী’ দেখে আনন্দিত তো হয়েছিলেনই, তিনি আমাকে আলাদা করে ধন্যবাদ দিয়েছিলেন গানটার জন্য। এইটা আমার জন্য অনেক বড় একটা প্রাপ্তি ছিলো। হয়তবা সেই অনুষ্ঠানের পারফর্মের কারণেই, প্রিন্সিপাল ফায়জুল হাসান স্যার, যিনি ছিলেন জাতীয় পতাকার ডিজাইনার পটুয়া কামরুল হাসানের সহোদর আমাকে চিনেছিলেন নামটা সহ…

স্মৃতিতে সময়গুলো এলে অন্যরকম ভালোলাগা হয়… আশেক ভাইকে ওই কীবোর্ড বাজানোর কারণে ধন্যবাদ দেয়া হয়নি আমার। জুনিয়র ভাইয়ের জন্য কাজটা তিনি ভালোবাসা থেকে করেছিলেন– এটা জানি। তবু আজ এই লেখায় ভাইয়াকে স্মরণ করে ধন্যবাদ দিচ্ছি। কিছু অনুভূতি আসলে সবসময়েই কেমন টাটকা রয়ে যায়!

হাজার কবিতা বেকার সবই তা, তার কথা কেউ বলেনা… সে প্রথম প্রেম আমার নীলাঞ্জনা।😛
প্রথম প্রেমের ব্যাপারটা নিয়ে সবাই একটু বেশি বেশি নস্টালজিক হয়– তাই বলে নচিকেতাও! সন্ধ্যা ঘনাতো যখন পাড়ায় পাড়ায়, রক থাকতো ভরে কিছু বখাটে ছোড়ায়, হিন্দি গানের কলি সদ্য শেখা গালাগালি, একঘেয়ে হয়ে যেত সময় সময়, তখন উদাস মন ভোলে মনরঞ্জন, দাম দিয়ে যন্ত্রনা কিনতে চায়…… দারুণ কথাগুলো! একদম কিশোর বয়েসের ছাপ আছে গানের কথাতে।

ছবিতে মাঝে আমি, বামে শিহাব আর ডানে ইমতিয়াজ। পিচকি পুলাপাইনগুলা কত্তো বড় হয়ে গেছে ভাবলে নিজেরই অবাক লাগে। অথচ আমি এখনো একদম বাচ্চাই আছি! এই ছবিটা ২০০২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের। কলেজটাকে আর তার মানুষগুলোকে আমি যে অনেক ভালোবাসি তা মাঝে মাঝেই অনুভব করি…

যা হোক, ঈদের পরদিন সকালের অবকাশে এই স্মৃতিচারণটুকু করে নিলাম। জীবনের আলটিমেট ব্যস্ততার মাঝে আসলে যেকোন ধরণের লেখালেখিই বেশ কঠিন। লিরিকটা শেয়ার করলাম। সেই সাথে গানটার এমপিথ্রিও।

লাল ফিতে সাদা মোজা সু স্কুলের ইউনিফর্ম
ন’টার সাইরেন সংকেত সিলেবাসে মনোযোগ কম
পড়া ফেলে এক ছুট ছুটে রাস্তার মোড়ে, দেখে
সাইরেন মিস করা দোকানীরা দেয় ঘড়িতে দম
এরপর একরাশ কালো কালো ধোঁয়া
স্কুল বাসে করে তার দ্রুত চলে যাওয়া
এরপর বিষণ্ণ দিন বাজে না মন বীণ
অবসাদে ঘিরে থাকা সে দীর্ঘ দিন

হাজার কবিতা বেকার সবই তা
তার কথা কেউ বলে না
সে প্রথম প্রেম আমার নীলাঞ্জনা

সন্ধ্যা ঘনাতো যখন পাড়ায় পাড়ায়
রক থাকতো ভরে কিছু বখাটে ছোড়ায়
হিন্দি গানের কলি সদ্য শেখা গালাগালি
একঘেয়ে হয়ে যেত সময় সময়
তখন উদাস মন ভোলে মনরঞ্জন
দাম দিয়ে যন্ত্রনা কিনতে চায়
তখন নীলাঞ্জনা প্রেমিকের কল্পনা
ওমনের গভীরতা জানতে চায়
যখন খোলা চুলে হয়তো মনের ভুলে
তাকাতো সে অবহেলে দু’চোখ মেলে
হাজার কবিতা বেকার সবই তা
তার কথা কেউ বলে না
সে প্রথম প্রেম আমার নীলাঞ্জনা

অংকের খাতা ভরা থাকতো আঁকায়
তার ছবি তার নাম পাতায় পাতায়
হাজার অনুষ্ঠান প্রভাত ফেরীর গান
মন দিন গুনে এই দিনে আশায়
রাত জেগে নাটকের মহড়ায় চঞ্চল
মন শুধু সে ক্ষণের প্রতীক্ষায়
রাত্রির আঙ্গিনায় যদি খোলা জানালায়
একবার একবার যদি সে দাঁড়ায়
বোঝেনি অবুঝ মন নীলাঞ্জনা তখন
নিজেতে ছিলো মগন এ প্রানপণ
হাজার কবিতা বেকার সবই তা
তার কথা কেউ বলে না
সে প্রথম প্রেম আমার নীলাঞ্জনা

About mahmud faisal

Yet another ephemeral human being...
This entry was posted in গান, স্মৃতিকথা. Bookmark the permalink.

হাজার কবিতা বেকার সবই তা-এ 9টি মন্তব্য হয়েছে

  1. dhakayapola বলেছেন:

    লেখায় লেখকের নীলাঞ্জনা কে পাওয়া গেলনা।
    সে অপেক্ষার অবসান লেখক নিজেই করবেন, এ প্রত্যাশা করি।
    ………………………………..
    স্কুল-কলেজের জীবনটা যে কারো জন্য একটা গোল্ডেন টাইম, এ সময়েই থাকে সবচেয়ে কম ব্যস্ততা আর থাকে সবচেয়ে বেশি অবসর। তারচেয়েও বেশি থাকে সে অবসর উদযাপন করার মত ছেলেমানুষী উদ্যম।

    আহ……দ্যাট গোল্ডেন টাইমস!

  2. tusin বলেছেন:

    ভাইয়া গানটা আমার অণেক প্রিয়। যখন ছোট ছিলাম তখন আমার আপু এই গানটা এত শুনত যে সেই ছোটবেলাই গানটা আমার মুখস্ত হয়ে গিয়েছিল।যদিত্ত তখন গানের অর্থ বুঝতাম না।{!!!!}

  3. খুব ভালো লাগল নস্টালজিক পোস্টটি পড়ে। নীলাঞ্জনা গানটি আমারো খুব প্রিয়। আর Right Here Waiting গানটি প্রথম শুনে কেন যেন চোখে জল চলে এসেছিল, এর পর যতবার শুনেছি মন খারাপ লেগেছে আবার কেমন যেন একটা ভালো লাগা অনুভূতি কাজ করেছে। অনেক শুভেচ্ছা🙂

  4. maq বলেছেন:

    ব্যাপারখানা কি? ছাত্রবেলাকে খুব মিস করা হচ্ছে বুঝি! কখনো কি মনে পড়ে যে এই ছাত্রত্ব কবে ঘুঁচবে সেটা নিয়ে কত প্রতিক্ষায় দিন পার করেছিলে?😀

    সমস্যাটা কি জানো? এই যে ছাত্রবেলাটাকে ফেলে এসেছ, এটা কখনোই তোমার পিছু ছাড়বেনা, বাকীটা জীবন এই ছাত্রবেলাই তোমাকে বার বার ডাকতে থাকবে। হতাশায় কিংবা একাকিত্বে বা আনন্দের মাঝেও দেখবে যে এই ফেলে আসা ছাত্রবেলাই তোমাকে অনুপ্রাণিত করবে। এটা অনেকটা অক্সিলারি জেনারেটরের মত, নীরবে তোমাকে নিয়ে কাজ করে যাবে কিন্তু সেভাবে টের পাবেনা…

  5. নিবিড় বলেছেন:

    অনেকদিন পর দেখা হল স্যার🙂
    নীলাঞ্জনা গানটা আমারো প্রিয়। আমাদের এক অনুষ্ঠানে গানটা গেয়েছিল মাহমুদ। আর ফয়জুর হাসান স্যার কে আমরা পেয়েছিলাম ভিপি হিসেবে। উনিও আমাকে চিনতেন তবে একটু অন্যরকম ভাবে। প্রেপে ঘুম, গল্পের বই পড়া এগুলোর জন্য। একদিন উনার হাতে গল্পের বই হাতে প্রেপ টাইমে ধরা পড়ার পর যে কান্ড হইছিল তা নিয়ে একটা লেখা লিখা যায়😛

  6. rizel4all বলেছেন:

    google-এ হটাত করে “নীলাঞ্জনা নচিকেতা” লিখে সার্চ দিলে তোর লেখাটাই প্রথমে এলো😀

    তাই আরেকবার ঢুঁ মারলাম

  7. সাকিব হাসান বলেছেন:

    আমার মনের ই শূন্য খাতা তে থাকবে তোমার নাম তা লেখা দয়া করে এই গানের লিঙ্ক তা কেও আমাকে দিন

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s