পড়ন্ত বিকেল ক্যাফেটেরিয়ায়


পড়ন্ত বিকেল ক্যাফেটেরিয়ায়
গিয়ে দেখি এক কাপ চা
পরম তৃষ্ণা হয়…
অজস্র এলোমেলো স্বপ্নের ভীড়ে,
তোমার শীতল চোখ
ভিজিয়ে যায় আমায়।

যেখানে তোমার ঠোঁট ভালোবাসা
আমি বুড়ো কবিতার মত চুপচাপ
যেখানে তোমার চোখ খুনী
আমি খুন হই… প্রতিদিন
প্রতিদিন… প্রতিদিন… প্রতিদিন…

পড়ন্ত বিকেল ক্যাফেটেরিয়ায়
গিয়ে দেখি এক কাপ চা
… … …
অজস্র এলোমেলো স্বপ্নের ভীড়ে,
তোমার শীতল চোখ
ভিজিয়ে যায় আমায়।

(গানের কথাঃ ক্যাফেটেরিয়া– শিরোনামহীন)

অফিস থেকে বের হইনি। মনের এরকম অবস্থায় কিছু করা ঠিক না, করা যায়ও না। তাই গান শুনছি। ঘড়ির কাঁটাতে সাড়ে আটটা… অনেক রাত হলো। অথচ ইউটিউবে শুনে চলেছি– পড়ন্ত বিকেল ক্যাফেটেরিয়ায়… খুঁজে খুঁজে এই শিরোনামহীনকেই বের করলাম… স্মৃতি রোমন্থন করার ইচ্চে হচ্ছে… অর্ক, সাধ, সৃজন, শোভন, গৌরব, রাতুল… সবাই মিলে চায়ের দোকান…

জীবনের জঘন্য নোংরা উপলব্ধিগুলো তখন ছিলোনা… বিকেল হলেই চলে যেতাম মোমিন ভাইয়ের দোকানে, বাবলুর দোকানে, মেম্বারের দোকানের আড্ডায় গৌরব, রানা,রহমান, সাধ, আমি… শুধুই স্মৃতি? ক্যাফেটেরিয়ার বিকেলগুলো… রিজেল, ত্বাহা, ইমরান, রাহী, জাকারিয়া, আবীর…. সবাই কেমন স্মৃতি হয়ে গেছে। জীবনটাই ক্রমে স্মৃতি হয়ে ক্ষয়ে যাওয়া…

কেন এমন হয়? কেন এত অজস্র কষ্টে বুকটা চেপে আসে? কেন নিজেকে বারবার কষ্টিপাথরে মাপতে হয়– যোগ্যতার দন্ডে মাপতে হয়? কেন সবাই তাকিয়ে থাকে অবস্থানের জন্য… ক্যারিয়ার… জীবন… আমার কিচ্ছু ভালো লাগেনা। আমার বড্ড ছেলেবেলায় ফিরে যেতে ইচ্ছে করে। যেখানে প্রত্যাশার ভারে ন্যুব্জ হয়ে পড়তে হয়না। বারে বারে সবাই যেখানে মাপকাঠি নিয়ে মাপতে বসে না– যেসময় গল্পে টাকা টাকা গল্প আসে না…

গানটা ক্রমাগত বেজে চলেছে… শুনছি প্রায় আধাঘন্টা ধরে… যেখানে তোমার ঠোঁট ভালোবাসায়… আমি বুড়ো কবিতার মতন চুপচাপ…
ক্যাফেটেরিয়া কি আর জীবনে হবে না? প্রতিদিন অমন করে শীতল চোখে ভিজে যেতে ইচ্ছে করে…
আমার বড্ড পালিয়ে যেতে ইচ্ছে করে… এই বাস্তবতাময় জগতকে ভালো লাগেনা। ভালো লাগেনা আমার এত অনুশাসন। আমার কেন যেন ক’দিন ধরে মনে হচ্ছে আমি শৃংখলে বন্দী… আমি জানিনা কোথায় শান্তি পাবো… জানিনা কোথায় গেলে আমি মনের মতন পরিবেশ পাবো।

আমার ছুটে যেতে ইচ্ছে করে কোন এক অচিনপুরে। ইচ্ছে করে ফিরে যাই কোন এক অদ্ভূত লোকালয়ে… তবু ক্রমাগত এই অভিনয় করে যেতে হবে না! আমার বড্ড কাঁদতে ইচ্ছে করে, জানো সুপ্রভা। জানো, মাঝে মাঝে মনে হয় যেন আমি ভেঙ্গেচুরে খান খান হয়ে গেছি… এখনকার মতন। দু’চোখ জুড়ে অজস্র অশ্রুরা বয়ে আসে ঝর্ণাধারার মতন… বুকের কষ্টগুলো উত্তাল হয়ে বুকের খাঁচাতেই আটকে গিয়ে এলোমেলো ছুটে কতক্ষণ– তারপর চোখ বেয়ে গড়িয়ে পরে…

আমার তোমাকেও মনে পড়ে না এখন… আমার নিস্পৃহা জীবনময়। তবু কেন স্মরণ করলাম জানিনা। আমি জীবনে কিছুই চাইনা আর। আজ অনেকগুলো বছর ধরে একটা মোবাইল, একটা ল্যাপটপ জাতীয় শখ ছিলো আমার। এখন আমার তাও আর ইচ্ছে করেনা। আমি জানি, আমার আসলে আর কিছুই পেতে ইচ্ছে করেনা… কেননা আমি জেনে গেছি, কিছু জীবনে কোন স্বপ্নই পূরণ হয়না… হয়ত পৃথিবীর নিয়মই এটা– কিছু মানুষ যা চাইবে, সব পাবে– আর কিছু জীবন হয়ত বুঝতেই পারবে না কি করলে কিছু পাওয়া সম্ভব… অন্ধের মতন হাতড়ে চলে ছুটবে জীবনময়– সফলতা তাদের জন্য না…

আমি জানি আমি কিছুই পাবো না। হয়ত এভাবেই চলবে জীবন… স্রষ্টার কাছে আমার দুঃখ নেই…

আমি বুড়ো কবিতার মতন চুপচাপ… প্রতিদিন… প্রতিদিন…
আমার বড্ড পালিয়ে যেতে ইচ্ছে করে। আমার মুক্তি পেতে ইচ্ছে করে… আমাকে মুক্তি পাবার বুদ্ধি দেবেনা তুমি? আমাকে একটু সমুদ্রপাড়ে নিয়ে যাবেনা? যেখানে হেঁটে যাবো পায়ের ছাপ ফেলে বালুতটে… সেখানে কেউ থাকবে না… কেউ না… কেউ না… আমাকে কেউ যেখানে দায় দেবে না। আমাকে যেখানে কেউ কথার ঘা দিয়ে ঘায়েল করে দেবে না। আমার খুব দ্বীপে যেতে ইচ্ছে করে… শেষ বিকেলে সমুদ্রতটে হেঁটে বেড়াবো… প্রবালের উপর খালি পায়ে হাঁটবো… নগ্নপায়ে হেঁটে বেড়াবো প্রকৃতির মাঝে, সমুদ্র তীরে, নরম ঘাসের মাঝে…

এই ব্যস্ত নগরী থেকে আমার খুউব মুক্তি পেতে ইচ্ছে করে। আচ্ছা, পাখিরা আকাশে উড়ে চলে ক্রমাগত দুই ডানা মেলে… ওরা কি মুক্ত? ওদের মতন করে কি উড়ে চলে যাওয়া যায়না দু’টি ডানা মেলে? হে আমার স্রষ্টা, আমাকে কেন পাখি করে বানালে না। তাহলে তো আর অশ্রুকে চিনতে হতো না আমার…

গান
লিরিক

Advertisements

About mahmud faisal

Yet another ephemeral human being...
This entry was posted in গান. Bookmark the permalink.

4 Responses to পড়ন্ত বিকেল ক্যাফেটেরিয়ায়

  1. fadedreamz বলেছেন:

    “পড়ন্ত বিকেল ক্যাফেটেরিয়ায়
    গিয়ে দেখি এক কাপ চা
    পরম তৃষ্ণা হয়…”

    আসলেই সেই দিন গুলো সোনার সময় ছিল … আমি আরেক বার চাই সে জীবন …

  2. শাহরিনা বলেছেন:

    আমি খালি শুনতেসি। আমাদের টাইম আসতেসে, কতখানি এনজয় করতে পারব কে জানে! স্কুল লাইফটা ত হেলায় গেল..

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s