সুন্দরতম দিনগুলোর কথা


ইদানিং অনুভব করি, “বিশ্ববিদ্যালয়” জিনিসটা একদম অন্যরকম! এই নামটার মধ্যেই ব্যাপ্তিটা অনুভব করা যায়– “বিশ্ব বিদ্যালয়”। সমগ্র বিশ্বের বিশালতা রয়েছে এই প্রতিষ্ঠানে। ছাত্র-ছাত্রীদের মনের মাঝে সেই বিশালত্বটা স্পর্শ করারই কথা। হয়ত এই প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাগ্রহণ শেষে একজন শিক্ষার্থীর উদার মানসিকতা, আচরণ আর ব্যবহারে ক্ষুদ্রতা কাটিয়ে অনেক বড়ত্ব এসে পড়ার কথা… আমি অন্তত তা-ই বিশ্বাস করি।

২০০৩ সালে একবার মেজ ভাইয়ার ক্যাম্পাস শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কাটিয়ে এসেছিলাম দশটা দিন। খুবই সুন্দর ছিলো সেই দিনগুলো! এমন নয় যে আমি অনেক ঘুরাঘুরি করেছিলাম। আমি শুধু ওই ক্যাম্পাস জীবনটাকে খুব কাছে থেকে উপভোগ আর অনুভব করেছিলাম। প্রতিদিনের জীবনযাত্রা, ক্যাম্পাসে ঘুরাঘুরি… মাত্র এস,এস,সি দেয়া সেই ছেলেটা ওই ক্যাম্পাসের অবারিত, উন্মুক্ত জীবনধারা আর ছাত্র-ছাত্রীদের মানসিকতা দেখে পণ করেই বসেছিলো একদিন সে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়বে।

এইচ,এস,সি পরীক্ষার পর অ্যাডমিশন নিয়ে ভাবছিলাম কোথায় হবে আমার ঠিকানা। ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি বেশ কিছুদিন আগেই। শুনলাম নর্থসাউথ ইউনিভার্সিটিতে আমি ১০০% টিউশন ওয়েভার পাব। বোর্ড পরীক্ষাগুলোতে আলহামদুলিল্লাহ আমার পূর্ণ সফলতা ছিল, সেই হিসেবে আরকি!😀 তাই সেখানে কথা বলতে গিয়েছিলাম, ঘুরে দেখতে গিয়েছিলাম।
ব্যস!! সে-ই শেষ। আর কখনও ভেবেও দেখিনি ওখানকার কথা। কেন যেন বারবার মনে হচ্ছিল আমি আর্টিফিশিয়ালিটি তথা কৃত্রিমতাভরা জীবন চাইনা! আমি এরকম কোন স্বপ্ন বুকে লালন করিনি সমগ্র ছাত্রজীবনটায় যে সূর্যের আলো ছেড়ে বৈদ্যুতিক আলোর মাঝে আমাকে থাকতে হবে ক্যাম্পাস নামের জিনিসটাতে, দরজা-জানালার কাঁচের উপর আলো প্রতিফলিত হবে, আর আড্ডা দিতে হবে বিল্ডিং এর গলি-ঘুপচিতে?? অসম্ভব!!
আমি ক্লাস শেষে গাছের নিচে বসে আড্ডা দিব। ক্যাফেটেরিয়াতে দলবেঁধে বসে গল্প করবো, চায়ের দোকানে ধুম কথা চলবে নানা বিষয়ে… থিয়েটার-নাটকের ডেমো হয়ে যাবে ওখানেই। কখনও পরীক্ষার আগে আমাদের কথা হবে শুধুই পড়াশোনা নিয়ে…… তবেই না আমার ভার্সিটি লাইফ!!

আল্লাহ আমার সহায় হয়েছিলেন। আমি বুয়েটের পর কুয়েট, রুয়েটে অ্যাডমিশন দিয়ে চোখ বন্ধ করে কুয়েটে চলে এলাম। পরিষ্কার মনে আছে, মেইন গেট দিয়ে ঢুকে যেই বিশাল দীঘি, ওটা দেখে আর বিশাআআল মাঠটা দেখেই আমি এই ক্যাম্পাসের প্রেমে পড়ে গিয়েছিলাম। গতকাল রাতে ওই মাঠে আমি রিজভী, ইমরান আর শুভ শুয়ে আকাশের তারা দেখছিলাম। অদ্ভূত অনুভূতি!! আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের কাছে সবাই মিলে অনেকবার শুকরিয়া করলাম এই সুন্দর মূহুর্তগুলি আমাদের দেয়ার জন্য। যদি কোন প্রাইভেট ইউনিতে আমার পড়তে হত, তাহলে এই আকাশ এভাবে দেখা হত না আমার। আমি খুব বেশি কিছু চাইনা কখনই। আমার কাছে আমার মনটা সবচাইতে বড়। ইনশাআল্লাহ, চাকুরিজীবন, ক্যারিয়ার-এ দারুণ কিছু না কিছু করবই। কিন্তু মন যদি জলসিঞ্চনবিহীন হয়ে থাকত, মনের ইচ্ছেগুলো মাটিচাপা পড়ে কৃত্রিম আচরণের খাঁচায় আটকে যেত, তবে আমি কি আর এই আমি থাকতাম!!

আমিতো রবীন্দ্রনাথ, জীবনানন্দ, জুলভার্ন, তিন গোয়েন্দা আর অসংখ্য অনুবাদ বই পড়ে কল্পনায় যা সাজিয়েছিলাম, তাতে এরকম কিছুই স্বপ্ন ছিলো! আমি মাঝে মাঝেই বলি আমি আর স্বপ্ন দেখিনা, দেখতে পারিনা… কিন্তু একটা সময় এরকম একটা অবারিত মাঠ, আকাশ আর পুকুরের ( আসলে নদী হবে) স্বপ্নেই বিভোর ছিলাম। মনের লালন না হলে কি মানুষ আর মানুষ থাকতে পারে?

আসলে আল্লাহ মানুষের মনের ইচ্ছেগুলো ঠিকই পূর্ণ করে দেন। যেমন এই মূহুর্তে নিজেকে খুব সুখী সুখী লাগছে… আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের অশেষ শুকরিয়া… এরকম সুন্দর অনুভূতিগুলোতে তিনি যেন আমায় আজীবন জড়িয়ে রাখেন… যেন আমি আমৃত্যু তার প্রসংশায় কাটিয়ে দিতে পারি!!

সুন্দর অনুভূতিদের লালন করতে কে না চায়!

About mahmud faisal

Yet another ephemeral human being...
This entry was posted in স্মৃতিকথা. Bookmark the permalink.

সুন্দরতম দিনগুলোর কথা-এ 19টি মন্তব্য হয়েছে

  1. Starlight বলেছেন:

    🙂 Purai khati kotha…

    May Allah Bless your efforts. Ameen!

  2. iqbal বলেছেন:

    bastob kothaguli khub sundhorvabe tule dorchen apnar ai lekhay. pore khub valo laglo.

  3. rongtuli বলেছেন:

    আমার মনের একটা সাধ আছে যে আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ব। এখনও কলেজেই রয়ে গেছি। আমার অন্য ফ্রেন্ডরা যখন বলে ভার্সিটিতে ক্লাস আছে, তখন আমি বলি আমার কলেজে ক্লাস আছে। কি কষ্টের ব্যাপার।:-(

    লেখাটা পড়ে খুব ভালো লাগল ভাইয়া।

    • Mahmud faisal বলেছেন:

      আহারে! ডাক্তার মানুষ… কলেজ হইলেই বা কি… পুরোই মানুষের জীবন নিয়ে পড়াশোনা… বিপদের বন্ধু…
      বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধ পূরণ হোক তোর… আগামীতে বিদেশি কোন ভার্সিটিতে হোক তোর পড়াশোনা…

      মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ 🙂

  4. তানিম বলেছেন:

    মজার কথা কি জানেন? যেখানেই থাকতেন, কেমন করে যেন ভালই থাকতেন।

  5. Aero বলেছেন:

    অভিনন্দন।

  6. শাহরিনা রহমান বলেছেন:

    কইলাম না কিছু। পড়লাম।

  7. তাশফিকা বলেছেন:

    ভালো লাগলো।আল্লাহর কাছে বেশি বেশি শুকরিয়া জানালে আল্লাহ আরো বাড়িয়ে দেন তাইনা।

    • আমার ব্লগে আপনাকে স্বাগত জানাই..
      শুকরিয়া জানালে আল্লাহ অবশ্যই আমাদের প্রতি তার করুনাধারা আরো বাড়িয়ে দেন, তেমনটাই পড়েছিলাম আমি🙂

      • তাশফিকা বলেছেন:

        ভাইয়া,সিসিবিতে আপনার এ্যকাউন্ট নাই কেন?প্লীজ ওখানে আপনার লেখাগুলো অন্য কোথাও লিখে বা দিয়ে থাকলে এখানে
        লিংক দেন প্লীজ।আমি ওইগুলো পড়তে চাইই।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s