ডোন্ট গিভ মি অ্যানাদার চান্স


আজ লিখতে শুরু করার আগেই আমি শিরোনাম ঠিক করে বসে আছি। মাথার ভিতর অসংখ্য বিতিকিচ্ছি অনুভূতিগুলো প্রায় এক সপ্তাহ ধরে যন্ত্রণা দিচ্ছে। কিছুতেই সেগুলোকে ঝেড়ে বের করতে পারছি না। তাই গুমোট হয়ে থাকা একটা জমাট বাঁধা বিষণ্ণতাকে দূর করতে পারছিনা কিছুতেই। শুধু এটুকু জানি, অদ্ভূত বাজে কিছু ভাবনা সারাক্ষণ আমাকে বিব্রত করছে… হয়ত এরকম মানসিক অবস্থাতে সুন্দর শব্দ দিয়ে মালা গাঁথতে পারবো না আমি…

পরীক্ষা শেষ হয়েছে গত ৭ মার্চ। এরপর অনেকগুলো দিন চলে গেছে। একদম পরিপূর্ণ অলস দিন পর্যন্ত ছিল এর মধ্যে, আমি স্তব্ধ হয়ে পড়ে ছিলাম… জীবনের অনর্থক ভাবনাগুলো মস্তিষ্কের ভেতরের জালে আটকে পড়ে গেছে…

আজকের এই শিরোনাম ঠিক করে বসে আছি তার কারণ রয়েছে। এই শিরোনামের সাথে অনেকেই অনেক সাযুজ্য খুঁজে পাবার কথা “থ্রি ইডিয়টস” (3 IDIOTS) মুভির একটা গানের সাথে… সেটা অনর্থকও নয় বটে।

Give me some sunshine
Give me some rain
Give me another chance
I wanna grow up once again….

আমি সেরকম কোন একটা ধারণা থেকেই এই নাম দিয়ে লিখতে বসেছি। ভারতের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বাস্তবমুখী প্রকৌশল শিক্ষার সংকটকে ফুটিয়ে তোলা ছিল এই চলচ্চিত্রের বেশ দারুণ কিছু বিষয়ের একটি। মুভিতে একটি ছেলে তার থিসিসের কাজটি শেষ করতে না পারায় বাবাকে অপমানিত হতে শোনে তার প্রিন্সিপালের ফোনে, যেই বাবা ছেলেবেলা থেকে তার পেছনে অনেক অনেক খরচ করেছিলেন… এই থিসিসে ফেল করায় তার গ্রাজুয়েশন আর কমপ্লিট না হবার সম্ভাবনা থেকে যায়… তখন ছেলেটা এই গান গায়… এবং এর পরেই সে জীবনের প্রতি আসক্তি হারিয়ে লজ্জা আর কষ্ট থেকে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়… সিনেমার এই অংশটা বেশ মর্মস্পর্শী ছিলো…

আমি সেম উদ্ভট একটা শিক্ষাব্যবস্থা শেষ করে হয়ত কই মাছের প্রাণের মতন হবার কারণে পাশ করে যাবার কাছাকাছি রয়েছি… আর এজন্যই হয়ত আমার মনে হচ্ছে আমি আর নতুন করে সুযোগ পেলেও এই জীবনটাকে গড়তে চাইনা… আমার পরিষ্কার মনে হয়, আমি আরেকটা সুযোগ পেলেও নিবো না…
অনেক কষ্ট করে তবেই এতটুকু পেরিয়ে এসেছি! যতটুকু ব্যর্থতা তা তো আমারই অর্জন। এর চাইতেও তো খারাপ হতে পারত! এই জীবনটাকে বড্ড ভারসদৃশ মনে হচ্ছে ক’দিন ধরে… এই নিরন্তর ভার বয়ে চলা… নিরন্তর মনের ভালোলাগাগুলোকে মাটি চাপা দিয়ে চলা… হৃদয়ের ভালোবাসাগুলো অব্যক্ত রেখে বাস্তবতাকে সঙ্গী করে গুমরে মরা…

খুব ক্লান্ত লাগে হঠাৎ … মনের ক্লান্তি। এই ক্লান্তি খেয়ে ঘুমুলেও যায়না… কীভাবে যে একে দূর করবো জানিনা!! শুধু জানি, যা চলে যাচ্ছে, যা চলে গেছে… সে গেছে বলেই আমি বেঁচে যাচ্ছি… জীবনের স্বপ্নগুলো পূরণ হয় বলে আর আমি বিশ্বাস করিনা…

ইচ্ছে করছে না আর লিখতে। পরে লিখবো নে। এখন একটু ছাদে গিয়ে আকাশের তারাদের দেখবো। ছাইপাশ ভেবে মনটা হালকা না হয়ে আরেকটু ভারী হলো দেখছি!
বয়ে চলো এই ভার অনন্ত… কতকাল আর চলবো এমন করে!!

About mahmud faisal

Yet another ephemeral human being...
This entry was posted in ব্লগর ব্লগর. Bookmark the permalink.

ডোন্ট গিভ মি অ্যানাদার চান্স-এ 7টি মন্তব্য হয়েছে

  1. rongtuli বলেছেন:

    আসলেই আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাটা নিরানন্দময়। এখানে একটা মানুষকে নিজের মত করে গড়ে ওঠার সুযোগটা দেয়া হয়না। তথাকথিত শিক্ষা চাপিয়ে দেয়া হয় আমাদের উপর। আর আমরা কিছু না বুঝেই বোঝা টানি।

  2. শাহরিনা রহমান বলেছেন:

    মুভিটা দেখবার সময় যখন দেয়ালে লেখাটা দেখিয়েছিল, ঘটনার নাটকীয়তায় স্তব্ধ হয়ে গেছিলাম। এখন বেশি স্ট্রেসড হয়ে গেলেই কাগজে আঁকিবুকি টানি, আর লিখি, “আই কুইট”! উদ্ভট!! কিন্তু সাহস নাই।

  3. rongtuli বলেছেন:

    আহারে, কেউই মনে হয় পড়ালেখাটাকে উপভোগ করতে পারেনা। তারপরেও এধরনের নির্জীব সিস্টেম চালু রাখা হয়। এই সিস্টেম আমাদের মনের যা কিছু আনন্দের, যা কিছু সুখের তার সবটুকুই শুষে নেয়, আর শেষ পর্যন্ত আমরা সবাই ছোবরা হয়ে বেরোই।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s